পা পিছলে উইম্বলডন থেকে ছিটকে গেলেন সেরেনা উইলিয়ামস

0
65

উইম্বলডনের প্রথম রাউন্ড থেকেই ছিটকে গেলেন সাত বারের চ্যাম্পিয়ন সেরেনা উইলিয়ামস। সবচেয়ে বেশি গ্র্যান্ড স্লাম জয়ের রেকর্ডের কাছে এবারও পৌঁছাতে পারলেন না। উইম্বলডনের প্রথম রাউন্ডেই কোটের মধ্যে পা পিছলে পড়ে গেলেন তিনি।

যার ফলে চোট পান পায়ে এবং খেলা চালিয়ে যেতে পারেননি আর। প্রথম রাউন্ড থেকে এভাবে বিদায় নিতে হবে ভাবতেই পারছিলেন না হয়তো। যে কারণে দেখা গেলো কাঁদতে কাঁদতে কোর্ট ছাড়ছেন সেরেনা উইলিয়ামস।

বেলারুশের আলিয়াকসান্দ্রা সাসনোভিচের কাছে হারেননি ২৩ বারের গ্র্যান্ড স্লাম চ্যাম্পিয়ন। যদিও ইনজুরিতে সেরেনার বিদায়ের কারণে দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠে গেলেন আলিয়াকসান্দ্রা।

প্রথম সেটে ৩-১ গেমে এগিয়ে ছিলেন মার্কিন তারকা সেরেনা। তখনই কোর্টের মধ্যে পিছলে পড়ে যান এবং আহত হন। বাঁ-পায়ের অ্যাঙ্কেলে চোট পান সেরেনা। এরপর সাসনোভিচ ৩-৩ করার পর আর খেলা চালিয়ে যেতে পারেননি সেরেনা। কাঁদতে কাঁদতেই অল ইংল্যান্ড ক্লাবের সেন্টার কোর্ট ছাড়েন ৩৯ বছর বয়সী সেরেনা।

উইম্বলডনে একই দিনে পা পিছলে কপাল পুড়েছে আদ্রিয়ান মানারিনোরও। নিজের ৩৩তম জন্মদিনে প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে মানারিনো পেয়েছিলেন রজার ফেদেরারকে। পুরুষ টেনিসে সবচেয়ে বেশি গ্র্যান্ড স্লাম জয়ের রেকর্ডটা যিনি রাফায়েল নাদালের সঙ্গে ভাগাভাগি করছেন।

ফরাসি তারকা শুরুতেই পেলেন ফেদেরারের মত শক্ত প্রতিপক্ষকে। যদিও জন্মদিনটাকে স্মরণীয় করার সুযোগ পেয়েছিলেন তিনি। সবচেয়ে বেশি উইম্বলডন জয়ী ফেদেরারের বিপক্ষে জয়ের সম্ভাবনা যে তৈরিও করতে পেরেছিলেন মানারিনো!

প্রথম সেট হারলেও পরের দুই সেট জিতে এগিয়ে গিয়ে গিয়েছিলেন মানারিনো। চতুর্থ সেটে অবশ্য ঘুরে দাঁড়ান ফেদেরার। আটবারের উইম্বলডন চ্যাম্পিয়ন ৬-২ গেমে সেটটা জিতে সমতা ফেরান।

দুর্ঘটনা ঘটল ওই সেট চলার সময়েই। পা পিছলে কোর্টে পড়ে যান মানারিনো। হাঁটুতে প্রচণ্ড আঘাত পান ফেদেরারের বিপক্ষে কখনও না জেতা এই ফরাসি খেলোয়াড়। কোনোমতে চতুর্থ সেটটা শেষ করলেও পঞ্চম সেটটা আর শুরু করতে পারেননি মানারিনো। চোটের কাছে হার মেনে কোর্ট ছাড়েন। ৩৯ বছর বয়সী ফেদেরারও উঠে গেলেন দ্বিতীয় রাউন্ডে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here